বিট্রেনে প্রতি ১০ জনের একজনের শরীরে কোকেনের অস্তিত্ব!

সন্দ্বীপ ডেস্ক: ক্যাথিড্রাল, চার্চ, পার্লামেন্ট কিংবা ইউনিভার্সিটি, কিছুই বাদ যাচ্ছে না ব্রিটেনে। মাদকের ছড়াছড়ি এসব জায়গাতেও। তাও কোকেন।

১১টি ক্যাথিড্রাল ও চার্চের টয়লেটে তদন্ত কর্মকর্তারা কোকেনের অস্তিত্ব পেয়েছেন। সেইন্ট পল’স, সেইন্ট লেনার্ড’স এর মতো ক্যাথিড্রালে মিলেছে কোকেন। তাহলে, অক্সফোর্ড বাদ যাবে কেনো? এ বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরি, অডিটোরিয়াম, টয়লেট – বাদ নেই কিছুই। ক্যামব্রিজের ৩১ শৌচাগারের ২১টিতে মিলেছে কোকেনের অস্তিত্ব। তদন্ত কর্মকর্তারা বলছেন, কোকেন নেই কোথায়, সেটিই এখন খুঁজে দেখার বিষয়।

ওয়েস্টমিনিস্টার প্যালেসের (পার্লামেন্ট) ৯টি টয়লেটে মিলেছে কোকেনের অস্তিত্ব। এমন জায়গায় এসব মিলেছে, যেখানে আইন প্রণেতারা ছাড়া অন্যদের প্রবেশাধিকার নেই। ব্রাসেলসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের ৪৬টি শৌচাগারের ৪১টিতে মাদকদ্রব্যের অস্তিত্ব মিলেছিলো কয়েকবছর আগে।

ব্রিটেনের মাদকপরিস্থিতি এখনকার।
আর তা অবশ্যই উদ্বেগের।
একারণে, গবেষণায় নেমেছিলেন ‘ইউনিভার্সিটি অব সারি’র একদল বিজ্ঞানী। তাদের গবেষণার ফল এ সপ্তাহে প্রকাশ করেছে সেখানকার এক বিজ্ঞান সাময়িকী।
মাদক কখনোই গ্রহণ করেননি এমন ৫০ জনের (স্বেচ্ছায় এ পরীক্ষা করিয়েছেন) হাতের ছাপ পরীক্ষা করে দেখা গেছে, তাদের ১৩ শতাংশের শরীরে কোকেন আর এক শতাংশের শরীরে হেরোইন মিলেছে।
গবেষকরা বলছেন, একটি নোট বাজারে আসার দুই সপ্তাহের মধ্যে (গড় হিসেব) মাদকসেবীদের কাছে কাজে লাগতে শুরু করে। এরপর, এ হাত ও হাত ঘুরে এটি আসলে সব হাতকে কলুষিত করছে।
ভয়াবহ!

Recommended For You