এখনই বহিষ্কার হচ্ছেন না সৈয়দ জামাল

নিউ ইয়র্ক অফিস: যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল আদালত কানসাসের লরেন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়নশাস্ত্রের ইন্সট্রাক্টর, বাংলাদেশী নাগরিক সৈয়দ আহমেদ জামালকে সাময়িকভাবে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসের জন্য সুযোগ দিয়েছে। এ ব্যাপারে আদালতের নির্দেশ মিলেছে বলে জানিয়েছেন জামালের পরিবার। মেয়েকে স্কুল পৌঁছে দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে ২৪ জানুয়ারি ইমিগ্রেশন এন্ড কাস্টমস এনফোর্সমেন্ট এজেন্টদের হাতের গ্রেফতার হন ৩০ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত জামাল। কানসাস সিটি ইমিগ্রেশন কোর্টের ফেডারেল জজ গ্লেন বাকের ৮ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার সাময়িকভাবে তাকে বসবাসের জন্য অনুমতি দেন। যদিও এই আদেশে তার মুক্তি এবং যুক্তরাষ্ট্রে থাকা নিশ্চিত হয়ে যায়নি। এতে জামালের বহিষ্কারের বিপক্ষে আদালতে যাবার সুযোগ তৈরি হয়েছে মাত্র। জামালের পরিবার বলছে, তারা লড়াই চালিয়ে যাবেন।

পড়াশোনার জন্যে যুক্তরাষ্ট্রে আসা জামাল নানা কায়দায় এখানে স্থায়ীভাবে বসবাসের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। ২০১২ সাল থেকে তিনি ‘আইস’ এর পর্যবেক্ষণ তালিকায় রয়েছেন। সাধারণত বৈধ হবার সব চেষ্টা ব্যর্থ হলে যে কোন ব্যক্তি এ তালিকায় আসেন। তখন যুক্তরাষ্ট্রে তাদের থাকা না থাকা আইস এর সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভরশীল হয়ে যায়। গেলো কয়েকমাস ধরে আইস পর্ববেক্ষণে থাকা ব্যক্তিদের ধরে তাদের দেশে পাঠিয়ে দিচ্ছে।

জামালের স্ত্রী ও তিন সন্তান যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক।

Recommended For You

Leave a Reply